nagorikkantha

ইরানের বিক্ষোভের বিষয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে বৈঠক ডাকায় যুক্তরাষ্ট্রের কঠোর নিন্দা করেছে রাশিয়া।

জাতিসংঘে নিযুক্ত রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া বলেন, অভ্যন্তরীণ বিষয়ে জাতিসংঘের শীর্ষ এই পরিষদকে যুক্ত করায় পরিষদ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এর কয়েক মিনিট আগে জাতিসংঘে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালি ইরানের সরকারবিরোধী বিক্ষোভকে ‘সাহসী জনতার শক্তিশালী প্রদর্শন’ হিসেবে প্র্রশংসা করেন।

জাতিসংঘে নিযুক্ত ইরানের স্থায়ী প্রতিনিধি গোলামালি খোশরু ওই বৈঠকে দাবি করেন, বাইরে থেকে সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ পরিচালনার খুবই পরিষ্কার প্রমাণ রয়েছে তাদের কাছে। তিনি অভিযোগ করেন, ইরানের অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে বৈঠক ডেকে জাতিসংঘের স্থায়ী সদস্য হিসেবে ক্ষমতার অপব্যবহার করছে যুক্তরাষ্ট্র।

ইরানে চলমান সরকারবিরোধী বিক্ষোভে এ পর্যন্ত ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে শতাধিক মানুষ এবং গ্রেপ্তার করা হয়েছে কয়েক শত বিক্ষোভকারীকে।

দ্রব্যমূলের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে ২৮ ডিসেম্বর একটি শহরে বিক্ষোভ হয় এবং তা দ্রুত অন্যান্য শহরে ছড়িয়ে পড়ে। নাগরিক অধিকারের বিক্ষোভ সরকারবিরোধী বিক্ষোভে রূপ নেয়। সরকার ও ধর্মীয় শাসনের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে থাকে বিক্ষোভকারীরা। বুধবার ইরানের বিপ্লবী রক্ষীবাহিনীর প্রধান তাদের দেশে চলমান বিদ্রোহ পরাজিত হয়েছে বলে দাবি করেন।

এদিকে, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের উচ্চমূল্যের প্রতিবাদে বিক্ষোভ শুরু হওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্র ইস্যুটিতে বেশিই গুরুত্ব দেয়। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পসহ তার প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তারা এ নিয়ে কথা বলা শুরু করেন এবং বিক্ষোভকারীদের সমর্থনে বক্তব্য দেওয়া শুরু করেন। ইস্যুটি নিয়ে ট্রাম্প ধারবাহিক টুইটও করেছেন।

শুক্রবার জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে এ ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্র বৈঠক ডাকায় রাশিয়াসহ কয়েকটি দেশ এর সমালোচনা করেছে। ইরানি রাষ্ট্রদূত খোশরু বলেছেন, এই বৈঠক ডাকার মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র তার নৈতিক, রাজনৈতিক ও বিশ্বাসযোগ্যতা হারিয়েছে।

ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত ফ্রাঁসোয়া দেলাত্রেও ইরানের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের বিরোধিতা করেছে।

তথ্যসূত্র : বিবিসি অনলাইন