nagorikkantha

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার দুর্নীতির মামলার রায়কে কেন্দ্র করে ঢাকাসহ সারা দেশে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। নগরবাসী আছেন এক ধরনের চাপা আতঙ্কে। আজ বৃহম্পতিবার সকাল থেকেই গণপরিবহনের দেখা নেই বললেই চলে। সিএনজিচালিত অটোরিকশার সংখ্যাও কম।

এমন পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষের শেষ ভরসা ছিল মোবাইল ফোনে বিভিন্ন অ্যাপভিত্তিক পরিবহন সেবা। কিন্তু বিধিবাম অধিকাংশ অ্যাপভিত্তিক পরিবহন সেবা আজ তাদের সেবা বন্ধ রেখেছে। ফলে অসহনীয় ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ মানুষ।

স্মার্টফোন অ্যাপ্লিকেশন (অ্যাপ) নির্ভর ট্যাক্সি পরিবহনসেবা উবার এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, ‘আমরা আমাদের সার্ভিস প্রদানে সাময়িক সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছি। আমরা খুব শিগগিরই আবার সেবা দেয়া শুরু করবো। অনুগ্রহ করে আমাদের সাথেই থাকুন।’

মোটরসাইকেল শেয়ারিং অ্যাপ পাঠাও গ্রাহকদের মোবাইলে পাঠানো ক্ষুদে বার্তায় জানায়, ‘বৃহস্পতিবার সকাল থেকে পাঠাওয়ের সেবা সাময়িকভাবে বন্ধ থাকবে। তবে পাঠাও ফুড ঢাকার কিছু নির্দিষ্ট স্থানে চালু থাকবে। তাদের সার্ভিস পুনরায় চালু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অবহিত করা হবে।’

এছাড়াও বন্ধ থাকছে মোটরসাইকেল শেয়ারিং সার্ভিস মুভও। গ্রাহকদের কাছে পাঠানো ক্ষুদে বার্তায় তারা লিখেছে, ‘বৃহস্পতিবার তাদের রাইড সেবা বন্ধ থাকবে। তবে গ্রাহকরা চাইলে প্রিয়জনকে এই অ্যাপের মাধ্যমে ভ্যালেন্টাইনের উপহার পাঠাতে পারবে।’

এমন গণপরিবহন সংকটের দিনে এসব মোবাইল অ্যাপভিত্তিক পরিবহন সেবা বন্ধ থাকায় অনেকে সমালোচনা করেছেন।

পাঠাওয়ের ফেসবুক গ্রুপে হাসনাত সুমন নামে একজন লিখেছেন, ‘হিন্দি সিনেমাতে প্রায়ই একটা ডায়ালগ শুনা যায় -দেখা দিয়া না; আসলি রঙ? বিপদের দিনে যাকে সবচেয়ে বেশি দরকার, সেই কিনা সার্ভিস বন্ধ করে দিয়ে ঘরে ঘুমাবে?

তরিকুর রহমান রজব নামে অপর একজন লিখেছেন, ‘ঈদেও পাঠাও বন্ধ ছিল না আর বৃহস্পতিবার পাঠাও বন্ধ। বৃহস্পতিবার রাইডারদের সরকারি ছুটি।’

খালেদার রায়কে কেন্দ্র করে উবার-পাঠাও-মুভ তাদের সেবা বন্ধ রাখলেও লেটস গো এবং সহজ রাইডস তাদের সেবা চালু রেখেছে।