nagorikkantha

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, খালেদা জিয়াকে পুরান ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা হবে। সামাজিক মর্যাদা ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তার যেসব সুবিধা পাওয়ার কথা তাকে তা দেয়া হবে।

তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত দেশের কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। তবে এ রায়কে কেন্দ্র করে কেউ যদি বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে তবে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা নেবে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে সচিবালয়ে বহুল আলোচিত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণার পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তিনি এসব কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়ার দুর্নীতির মামলাটি সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করে বিজ্ঞ বিচারকগণ মতামত দিয়েছেন। আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি খুবই স্বাভাবিক। আমি সারাদেশে খবর নিয়েছি জেলাগুলোতেও পরিস্থিতি স্বাভাবিক। কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। বর্তমানে দেশের কোথাও কোনো আতঙ্ক নেই। সব কিছুই স্বাভাবিক চলছে।

তবে কেউ শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে অরাজকতা করার চেষ্টা করলে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী সচল রয়েছে। কেউ রাজনৈতিক কর্মসূচি দিতেই পারে। যেহেতু নির্বচন কমিশন তাদেরকে নিষিদ্ধ করেনি। তবে জনগণের জানমালের নিরাপত্তায় কর্মসূচির নামে বিশৃঙ্খলা করার সুযোগ দেয়া হবে না।

তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া দুইবারের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন, বয়স্ক এবং একটি বড় দলের চেয়ারপারসন হওয়ায় সামাজিক বিবেচনায় পুরান ঢাকার কারগারে রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তিনি জেলকোড অনুযায়ী সকল সুযোগ-সুবিধা পাবেন।

উল্লেখ্য, বহুল আলোচিত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বৃহস্পতিবার রায় ঘোষণা করেছেন আদালত। রায়ে খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের সাজা দেয়া হয়েছে। অপর আসামি খালেদার জিয়ার ছেলে তারেক রহমানসহ বাকিদের দেয়া হয়েছে ১০ বছরের সাজা।