nagorikkantha

দায়িত্বজ্ঞানহীন ব্যাটিংয়ের প্রদর্শনী মেলে ধরে ঢাকা টেস্টে আড়াই দিনেই ২১৫ রানের বিশাল ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ।

বিবর্ণ ব্যাটিংয়ে বিশাল হার
প্রথম ইনিংসের ব্যাটিং ব্যর্থতা দ্বিতীয় ইনিংসেও পেছনে ফেলতে পারেনি বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে ৩ রানে শেষ ৫ উইকেট হারিয়ে অলআউট হয়েছিল ১১০ রানে। দ্বিতীয় ইনিংসে ২৩ রানে হারাল শেষ ৬ উইকেট! ৩৩৯ রানের লক্ষ্য তাড়ায় বাংলাদেশ যেতে পারল না ধারেকাছেও। দেড় সেশনে অলআউট হলো ১২৩ রানে।

স্পিনবান্ধব উইকেট বানিয়ে ম্যাচ জিততে চেয়েছিল বাংলাদেশ। স্পিনাররা কিছুটা সফল হলেও ব্যাটসম্যানদের মধ্যে দেখা যায়নি লড়াইয়ের মানসিকতা। সেটারই প্রতিফলন আড়াই দিনেই ২১৫ রানের বিশাল হার। দুই ম্যাচের সিরিজ শ্রীলঙ্কা জিতল ১-০ ব্যবধানে। সামনে টি-টোয়েন্টি সিরিজে ভিন্ন কিছু করতে পারবে বাংলাদেশ?

সংক্ষিপ্ত স্কোর

বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংস: ২৯.৩ ওভারে ১২৩ (তামিম ২, ইমরুল ১৭, মুমিনুল ৩৩, মুশফিক ২৫, লিটন ১২, মাহমুদউল্লাহ ৬, সাব্বির ১, মিরাজ ৭, রাজ্জাক ২, তাইজুল ৬, মুস্তাফিজ ৫*; আকিলা ধনঞ্জয়া ৫/২৪, হেরাথ ৪/৪৯, দিলরুয়ান ১/৩২)

শ্রীলঙ্কা দ্বিতীয় ইনিংস: ৭২.৫ ওভারে ২২৬

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস: ৪৫.৪ ওভারে ১১০

শ্রীলঙ্কা প্রথম ইনিংস:৬৫.৩ ওভারে ২২২

ফল: শ্রীলঙ্কা ২১৫ রানে জয়ী

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: রোশেন সিলভা

ম্যান অব দ্য সিরিজ: রোশেন সিলভা।

তাইজুলকে ফিরিয়ে চূড়ায় হেরাথ
রঙ্গনা হেরাথের অফ স্টাম্পে পিচ করা বল স্লগ সুইপ করলেন তাইজুল ইসলাম। ডিপ মিড উইকেটে ক্যাচ নিলেন দানুসকা গুনাথিলাকা। হেরাথ উঠে গেলেন চূড়ায়। টেস্ট ইতিহাসে বাঁহাতি বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি উইকেটের রেকর্ড এখন হেরাথের (৪১৫ উইকেট)। শ্রীলঙ্কার বাঁহাতি স্পিনার পেছনে ফেলেছেন পাকিস্তানের ওয়াসিম আকরামকে (৪১৪ উইকেট)। তাইজুলের বিদায়ে বাংলাদেশ অলআউট হয়েছে ১২৩ রানে।

মিরাজকে ফিরিয়ে ধনঞ্জয়ার পাঁচ
একই ওভারে সাব্বির রহমান ও আব্দুর রাজ্জাক এবং পরের ওভারে মেহেদী হাসান মিরাজকে (৭) ফিরিয়ে অভিষেকে পাঁচ উইকেট নিয়েছেন আকিলা ধনঞ্জয়া। ম্যাচে ৩৯ রানে ৮ উইকেট। অভিষেকে শ্রীলঙ্কার কোনো বোলারের সেরা বোলিং এটি। অজান্তা মেন্ডিসের ১৩২ রানে ৮ উইকেট ছিল আগের রেকর্ড।

আবারো ব্যর্থ সাব্বির
প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও ব্যর্থ হয়েছেন সাব্বির রহমান। আকিলা ধনঞ্জয়ার বলে ক্যাচ দেওয়ার আগে করেছেন ১ রান। মোসাদ্দেক হোসেনের জায়গায় একাদশে ঢুকে পুরো ম্যাচেই সাব্বিরের রান ১!

স্টাম্পড হলেন মুশফিক
রঙ্গনা হেরাথের বলে উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে এসে খেলতে গিয়ে স্টাম্পড হয়েছেন মুশফিকুর রহিম (২৫)। বাংলাদেশের সংগ্রহ তখন ৬ উইকেটে ১০২।

টিকলেন না মাহমুদউল্লাহও
সতীর্থদের আসা-যাওয়ার মিছিলে যোগ দিলেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহও। অফ স্পিনার আকিলা ধনঞ্জয়াকে ডাউন দ্য উইকেটে খেলতে এসেছিলেন ডানহাতি ব্যাটসম্যান। বল তার ব্যাট লেগে চলে যায় স্লিপে দিমুথ করুনারত্নের হাতে। মাহমুদউল্লাহ করেন ৬। বাংলাদেশের সংগ্রহ তখন ৫ উইকেটে ঠিক ১০০ রান।

বাংলাদেশের একশ
রঙ্গনা হেরাথকে টানা দুই বলে দুই চার মারলেন মুশফিকুর রহিম। প্রথমটা এক্সট্রা কভার দিয়ে, পরেরটা ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্ট দিয়ে। আর এই দুই চারে পূর্ণ হলো বাংলাদেশের শতরান। ২৪ ওভারে ১০০ রান করতে ৪ উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ।

টিকলেন না লিটন
দলের চাপের মুখে বেশিক্ষণ উইকেটে টিকতে পারেননি লিটন দাস। অভিষিক্ত অফ স্পিনার আকিলা ধনঞ্জয়ার হঠাৎ লাফিয়ে ওঠা বল লিটনের গ্লাভসে লেগে জমা পড়ে শর্ট লেগ ফিল্ডারের হাতে। ২০ বলে লিটন করেন ১২। বাংলাদেশের সংগ্রহ তখন ৪ উইকেটে ৭৮ রান।

লাঞ্চের পরই ফিরলেন মুমিনুল
লাঞ্চ বিরতি থেকে ফিরে তৃতীয় ওভারেই উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। রঙ্গনা হেরাথের অফ স্টাম্পের বলে উইকেটরক্ষককে ক্যাচ দিয়েছেন মুমিনুল হক (৩৩)। এটি হেরাথের ৪১৩ নম্বর টেস্ট উইকেট। তখন ৬৩ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে চাপে বাংলাদেশ।

প্রথম সেশনে দুই ওপেনারকে হারাল বাংলাদেশ
সকালে শ্রীলঙ্কার শেষ দুই উইকেট তুলে নিতে বাংলাদেশের লেগেছিল ১১.৫ ওভার। পরে ৩৩৯ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে লাঞ্চের আগেই দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও ইমরুল কায়েসের উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। লাঞ্চ বিরতিতে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৫৭ রান। জিততে হলে এখনো ২৮২ রান করতে হবে বাংলাদেশকে, হাতে ৮ উইকেট। মুমিনুল হক ৩১ ও মুশফিকুর রহিম ২ রানে অপরাজিত আছেন। এই সেশনে সব মিলিয়ে রান উঠেছে ৮৩, উইকেট পড়েছে ৪টি।

ছক্কা হাঁকিয়েই ফিরলেন ইমরুল
অফ স্টাম্পের বাইরে রঙ্গনা হেরাথের লেংথ বল। ডাউন দ্য উইকেটে এসে লং অফের ওপর দিয়ে ছক্কা হাঁকালেন ইমরুল কায়েস। বাঁহাতি স্পিনার পরের বলটাও করলেন প্রায় একই। কিন্তু এবার ব্যাট এগিয়ে ডিফেন্স করতে গিয়ে উইকেটরক্ষককে ক্যাচ দিয়ে ফিরলেন ইমরুল (১৭)। বাংলাদেশের সংগ্রহ তখন ২ উইকেটে ৪৯। ওয়াসিম আকরামকে (৪১৪) ছাড়িয়ে টেস্টের সবচেয়ে সফলতম বাঁহাতি বোলার হতে হেরাথের চাই আর ৩ উইকেট।

শুরুতেই ফিরলেন তামিম
বড় লক্ষ্য তাড়ায় দ্বিতীয় ওভারেই তামিম ইকবালের উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। অফ স্পিনার দিলরুয়ান পেরেরার প্রথম বলেই তামিম হয়েছেন এলবিডব্লিউ। অফ স্টাম্পে পড়ে পিচ করা বলে ডিফেন্ড করতে চেয়েছিলেন তামিম। কিন্তু বল তার ব্যাট ফাঁকি দিয়ে আঘাত করে প্যাডে। রিভিউ নিয়েও রক্ষা হয়নি। তামিম ২ রান করে ফেরার সময় বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ উইকেটে ৩।

জিততে রেকর্ড গড়তে হবে বাংলাদেশকে
তৃতীয় দিনে শ্রীলঙ্কার শেষ দুই উইকেট তুলে নিতে বাংলাদেশের লেগেছে ১১.৫ ওভার। দিনে প্রথমবার আক্রমণে এসে দুই বলে দুই উইকেট নিয়েছেন তাইজুল ইসলাম। শ্রীলঙ্কা দ্বিতীয় ইনিংসে অলআউট হয়েছে ২২৬ রানে। বাংলাদেশের সামনে লক্ষ্য দাঁড়িয়েছে ৩৩৯ রানের। মিরপুরে ৩০০ বা এর বেশি রান তাড়া করে জিততে পারেনি কোনো দল। এই টেস্ট জিততে হলে বাংলাদেশকে গড়তে হবে রেকর্ড।

শ্রীলঙ্কা দ্বিতীয় ইনিংস: ৭৩.৫ ওভারে ২২৬/১০ (করুনারত্নে ৩২, মেন্ডিস ৭, ধনঞ্জয়া ২৮, গুনাথিলাকা ১৭, চান্দিমাল ৩০, রোশেন ৭০*, ডিকভেলা ১০, দিলরুয়ান ৭, আকিলা ০, লাকমাল ২১, হেরাথ ০; তাইজুল ৪/৭৬, মুস্তাফিজ ৩/৪৯, মিরাজ ২/৩৭, রাজ্জাক ১/৬০)

তাইজুলের দুই বলে দুই উইকেটে শেষ শ্রীলঙ্কা
তৃতীয় দিনে প্রথমবার আক্রমণে এসেই পরপর দুই বলে শ্রীলঙ্কার শেষ দুই উইকেট তুলে নিয়েছেন তাইজুল ইসলাম। সুরঙ্গা লাকমালকে বোল্ড করার পর রঙ্গনা হেরাথকে করেছেন এলবিডব্লিউ। শ্রীলঙ্কার দ্বিতীয় ইনিংস শেষ হয়েছে ২২৬ রানে। ৭০ রানে অপরাজিত ছিলেন রোশেন সিলভা।

এসেই তাইজুলের উইকেট
তৃতীয় দিনে প্রথমবার বোলিং পরিবর্তন করেই সফলতা পেয়েছে বাংলাদেশ। আক্রমণে এসেই সুরঙ্গা লাকমালকে ফিরিয়েছেন তাইজুল ইসলাম। বাঁহাতি স্পিনারের বলে বোল্ড হয়েছেন ২১ রান করা লাকমা।

দ্রত দুই উইকেট চায় বাংলাদেশ
তৃতীয় দিনের খেলা শুরুর আগে টেলিভিশন ধারাভাষ্যকারকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশের স্পিনার আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, ’আমাদের দ্রুত দুটি উইকেট নিতে হবে, আমাদের বড় কাজ করতে হবে। ৩০০ রান তাড়া করা কঠিন কাজ, কিন্তু অসম্ভব নয়। এটা খুব সম্ভব। প্রথম ইনিংসের মতো ব্যাট করাটা আমার কাছে কঠিন মনে হয় না।,

জয়ের আশায় বাংলাদেশ
মিরপুরে ৩০০ বা এর বেশি রান তাড়া করে জিততে পারেনি কোনো দল। সেখানে দ্বিতীয় দিন শেষে শ্রীলঙ্কার লিড হয়ে গেছে ৩১২। সিরিজ নির্ধারণী টেস্ট জিততে হলে বাংলাদেশকে গড়তে হবে রেকর্ড। দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে মেহেদী হাসান মিরাজ জানান, রেকর্ড গড়েই বাংলাদেশ জিততে চায়, ‘শ্রীলঙ্কার মাটিতে গিয়ে আমরা একটা টেস্ট জিতেছিলাম। শ্রীলঙ্কায় দুইশ রান (১৯১ রান) তাড়া করে জিততে পারলে আমার মনে হয়, নিজেদের মাটিতে আমরা ৩০০-প্লাস রান করে জিততে পারব। এটাই আমাদের আত্মবিশ্বাস জোগাচ্ছে।’

টেস্টের লাগাম শ্রীলঙ্কার হাতে
প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশকে ১১০ রানে গুটিয়ে দিয়ে ১১২ রানের লিড পায় শ্রীলঙ্কা। দ্বিতীয় দিন শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৮ উইকেটে ২০০ রান। লিড বেড়ে হয়েছে ৩১২। রোশেন সিলভা ৫৮ ও সুরঙ্গা লাকমাল ৭ রান নিয়ে তৃতীয় দিন শুরু করেছেন। মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে শনিবার সকাল সাড়ে ৯টায় শুরু হয়েছে তৃতীয় দিনের খেলা।

দ্বিতীয় দিন শেষে
শ্রীলঙ্কা দ্বিতীয় ইনিংস: ৬২ ওভারে ২০০/৮ (করুনারত্নে ৩২, মেন্ডিস ৭, ধনঞ্জয়া ২৮, গুনাথিলাকা ১৭, চান্দিমাল ৩০, রোশেন ৫৮*, ডিকভেলা ১০, দিলরুয়ান ৭, আকিলা ০, লাকমাল ৭*; মুস্তাফিজ ৩/৩৫, মিরাজ ২/২৯, তাইজুল ২/৭২, রাজ্জাক ১/৬০)।

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস: ১১০

শ্রীলঙ্কা প্রথম ইনিংস: ২২২।