nagorikkanthanagorikkantha

পরকীয়া প্রেমের সম্পর্কের জের ধরে স্ত্রীর প্রেমীকের হাতে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন হাছান আলী (৩২)। রবিবার রাত ১টার সময় ঘটনাটি ঘটেছে টাঙ্গাইল জেলাধীন গোপালপুর উপজেলায় দৌলতপুর গ্রামে। স্বপন (৩৫) ও তার বাবা মুইটা মিয়া তাকে রাস্তা থেকে ধরে বাড়িতে নিয়ে মারধর করে বেঁধে রাখে বলে অভিযোগ করেছেন হাছান। এ নিয়ে এলাকার মানুষদের ভেতর দেখা দিয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।

সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানাযায়, মৃত ওয়াদ আলীর ছেলে হাছান একজন চায়ের দোকানদার। তার স্ত্রী চামেলী (২৭) ১০ মাস আগে তার সাথে ঝগড়া করে বাপের বাড়িতে চলে যান। চলে যাবার একমাস পরেই ডিভোর্স দেন হাছানকে। তাদের ঘরে তায়েবা (১০) এবং তামজিদ (০৮) নামের দুটি ফুটফুটে সন্তানও রয়েছে। হাছানের দাবি তার স্ত্রীর সাথে একই গ্রামের মুইটা মিয়ার ছেলে গরু ব্যবসায়ী স্বপনের সাথে প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। এই সম্পর্কের টানেই ঘর ছেড়েছে তার স্ত্রী চামেলী।

দুই সন্তানের জনক স্বপন কোর্ট ম্যারেজ করে চামেলীকে বিয়ে করেছে বলেও এলাকায় একটা গুঞ্জন রয়েছে। তবে এ বিষয়ে সঠিক কোন তথ্য পাওয়া যায়নি। প্রিয় স্ত্রীকে হারিয়ে অনেকটা অস্বাভাবিক উন্মাদের মত হয়ে উঠেছে হাছান, এমনটাই জানিয়েছেন কেউ কেউ।

হাছান অভিযোগ করে বলেন, সে নিয়মিত গভীর রাত পর্যন্ত স্থানীয় আলম নগর বাজারে আড্ডা দিয়ে থাকে কিম্বা নদীতে মাছ ধরার জন্য গিয়ে থাকে। আজ রাত একটার সময় (৯ অক্টোবর) রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় স্বপন এবং তার বাবা মুইটা মিয়া তাকে রাস্তা থেকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে ঘরে বেঁধে রাখে এবং তার উপর শারিরীক নির্যাতন চালায়। এদিকে খবর পেয়ে রাত দুইটার দিকে স্থানীয়রা স্বপনের বাড়ী থেকে হাছানকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে।
ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে শফিকুল ইসলাম জানান, হাছানকে বাঁধা অবস্থায় স্বপনদের বাড়ী থেকে উদ্ধার করা হয়।

এ বিষয়ে কথা বললে স্বপনের বাবা মুইটা এবং তার মা আয়বানু সাংবাদিককে বলেন, রাত একটার দিকে কেউ একজন তাদের বাড়িতে এসেছিল বলে তারা বুঝতে পারে। এবং লোকটা বাড়িতে একজোড়া জুতো রেখে যায়। স্বপন ও তার বাবা অপেক্ষা করতে থাকে জুতো নিতে লোকটা নিশ্চয় আসবে। পরে হাছান জুতো নিতে গেলে তাকে আটক করে রাখা হয়। তবে হাছানকে কোনপ্রকার মারধর করেনি বলে তাদের দাবি। হাছানের মুখে এবং শরীরে যে আঘাতের চিহৃগুলো রয়েছে সেটা পড়ে গিয়ে দেয়ালের সাথে আঘাত পেয়ে হয়েছে। হাছান বাড়িতে চুরি করতে কিম্বা অন্য কোন প্রকার ঘটনা ঘটাতে এসেছিল কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তারা জানান, তার উদ্দেশ্য কি ছিল তা আমরা সঠিক জানি না।

এদিকে ছেলেকে বাড়িতে ধরে নিয়ে মারধর করায় হাছানের মা রবি বেগম নির্যাতনকারীদের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন। হাসানের মেয়ে তায়েবার সাথে কথা বললে, তায়েবা তার মাকে তাদের মাঝে ফিরে আসার জন্য অনুরোধ জানায়।

বিষয়টা নিয়ে স্বপন এবং চামেলীর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তাদেরকে পাওয়া যায়নি।

০৯ অক্টোবর, ২০১৭ ১৬:০৬ পি.এম