nagorikkanthanagorikkantha

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় গতকাল মঙ্গলবার সনিয়া আক্তার (১৪) নামে নবম শ্রেনীর এক ছাত্রী গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যার এক দিন না যেতেই আবার পারভীন আক্তার (২৫) নামে এক গৃহিনী গলায় দড়ি দিয়ে আত্বহত্যা করেছে।

মৃত পারভীন আক্তার উপজেলার বুড়াবুড়ী ইউনিয়নের মাদারপাড়া গ্রামের মনসুর আলীর ২য় স্ত্রী।

জানা যায়, বুধবার (১১ অক্টোবর) সকাল ১১টার সময় পাশের মৃত চাচার বাড়ির এক ঘরে গলায় দড়ি দিয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়।

মৃতের পরিবার জানায়, মনসুর আলীর ১ম স্ত্রী মারা যাওয়ায় গত ৯মাস আগে ২য় স্ত্রী পারভীন আক্তার এর সাথে বিয়ে হয়। সকাল ১১টার সময় সবাই নিজ নিজ কাজে যায়। পরে বাড়িতে এসে পারভীনকে ডাকাডাকি করলে কোন সাড়া না পেয়ে চাচার বাড়িতে গিয়ে খোজাখুজি করলে এক ঘরে গলায় দড়ি দিয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। তাৎখনিক তার হৃদপিন্ড চলতে দেখে দড়ি কাটে তাকে নামানো হয়। ততক্ষুনে সে মৃত্যুবরণ করে।

তবে এই রহস্যজনক মৃত্যুকে সহজে কেউ মেনে নিতে পারছে না। আত্মহত্যা না হত্যা এ নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হতে দেখা গেছে।

মনসুর আলীর ছোট ভাই সোহাগ জানান, পারভীন আক্তার সব সময় গোমরা মুখকরে থাকতো। মন দিয়ে কোন কাজ তেমন করতো না।

এক গৃহিনীর গলায় দড়ি দিয়ে আত্বহত্যার খবর পেয়ে তেঁতুলিয়া মডেল থানা পুলিশ ঘটনা স্থল পরিদর্শন করে তেমন কোন সূত্র না পেয়ে মৃত পারভীনকে পরিবারের
কাছে হস্তান্তর করে।

এ বিষয়ে বুড়াবুড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তারেক হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মৃতের শরীরে তেমন কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তবে কেন সে আত্মহত্যা করেছে জানা যায় নি।

১২ অক্টোবর, ২০১৭ ১৬:৩৭ পি.এম