nagorikkantha

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি থেকে ঢাকায় আসার পথে একটি চলন্ত বাসে স্বামী-স্ত্রী অসুস্থ হয়ে পড়েন। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. আয়সা রবিবার রাত ১১টার দিকে তাদের দুজনকেই মৃত ঘোষণা করেন। ধারণা করা হচ্ছে বাসেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন এই দম্পতি!

মৃত দম্পতির নাম মোঃ সিরাজুল ইসলাম (৬২) ও তার স্ত্রী ঝরনা বেগম (৫২)। নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি উপজেলায় চাটগাঁও গ্রামে তাদের বাড়ি। বর্তমানে তিন ছেলে ও এক মেয়েকে নিয়ে তারা থাকতেন ঢাকা শহরের যাত্রাবাড়ী থানাধীন সায়দাবাদ এলাকায়।

সাথে থাকা তাদের আত্মীয় সুমন জানান, কয়েকদিন আগে তারা নোয়াখালীর গ্রামের বাড়িতে মৃত ঝরনা বেগমের ভাইয়ের মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে ছুটে যান।

রোববার নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি থেকে ঢাকায় ফেরার সময় চলন্ত বাসে প্রথমে ঝরনা বেগম অসুস্থ হন। স্ত্রীর অসুস্থতা দেখে তার পাশে থাকা স্বামীও অসুস্থ হয়ে পড়েন। দীর্ঘক্ষণ বাসে থাকার পর ঢাকা পৌঁছলে তাদের সায়েদাবাদে বাস থেকে নামিয়ে প্রথমে মুগদার একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়। মুগদা থেকে পরে দ্রুত ঢাকা মেডিকেলে নিলেই কর্তব্যরত চিকিৎসক দুজনকেই মৃত ঘোষণা করেন।

আত্মীয় সুমন জানান, গত দুইদিন আগে গ্রামের বাড়িতে কলপাড়ে পড়ে গিয়ে মাথায় আঘাত পেয়েছিলেন ঝরনা বেগম। এছাড়া আগে থেকেই তার স্বামীর হার্টের সমস্যা ছিল।

ঢাকা মেডিকেলের পুলিশ ক্যাম্পের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) বাবুল মিয়া জানান, ঝরনার মাথায় আঘাত থাকার কারণে কর্তব্যরত চিকিৎসক পুলিশ কেস দিয়েছেন ও তার স্বামী সিরাজুল ইসলামের মরদেহ স্বজনদের বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।

১৬ অক্টোবর, ২০১৭ ১৭:২৭ পি.এম